জাহান্নামের আগুন জ্বলে না যে দিন

২০ অক্টোবর, ২০১৭ ১২:৪২:০০

মুসলমানদের কাছে সপ্তাহের সবচেয়ে গুরুত্ব ও তাৎপর্যপূর্ণ দিন হল শুক্রবার অর্থাৎ জুমার দিন। ফজিলতের কারণে এদিনটি গরীবের ঈদের দিন বলা হয়ে থাকে।

সপ্তাহের সবচেয়ে গুরুত্ব ও তাৎপর্যপূর্ণ দিন হল শুক্রবার অর্থাৎ জুমার দিন। এ দিনের ফজিলত অনেক। তাই কোনো মুসলমানের উচিত নয় যে, জুমার নামাজ থেকে বিরত থাকা। জুমার দিনকে সপ্তাহের শ্রেষ্ঠ দিন ঘোষণা দিয়েছেন বিশ্বনবি। পবিত্র এই দিনের কিছু ফজিলত রয়েছে।

১। জুম্মার দিন জাহান্নামের আগুন জ্বলে না।

২। জুম্মার রাতে দোযখের দরজা বন্ধ থাকে।

৩। জুম্মার দিনে যে ব্যক্তি মৃত্যুবরণ করেন তাকে শহিদি মর্যাদা দেওয়া হয়।

৪। জুম্মার দিনে একটি নেকি ৭০টি নেকির সমান হয়।

৫ । জুম্মার দিনে যে হজ্ব হয় সেটা ৭০টি হজ্জের সমান হয়।

৬। জুম্মার দিনে যে দরূদ পড়া হয় তা আমাদের প্রীয় নবী মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) নিজে শুনতে পান।

মহান আল্লাহ রাব্বুল আল-আমিন আরও অনেক ফজিলত দিয়েছেন এই পবিত্র দিনে। শুক্রবার দু’আ কবুলেরও দিন, তবে দোয়ায় নিষিদ্ধ কিছু চাওয়া যাবে না। এই দিনেই সংঘটিত হবে কিয়ামত। আল্লাহ শুক্রবারকে অন্যান্য দিনের উপর শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছেন।

রাসুলুল্লাহ (সা.) দিনটির এরকম আরো কিছু বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করেছেন। হযরত আবু হুরায়রা(রা.) এবং হুযাইফা(রা.) থেকে বর্ণিত : রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেন : “আমাদের পূর্বে যারা এসেছিলেন আল্লাহ তাদেরকে শুক্রবার থেকে দূরে রেখেছিলেন। ইহুদীদের ছিল শনিবার এবং খ্রিস্টানদের ছিল রবিবার। অতঃপর আল্লাহ আমাদেরকে শুক্রবারের ব্যাপারে জ্ঞান দিলেন। তাই শুক্রবার, শনিবার, রবিবার যেভাবে ক্রমানুসারে আসে, হাশরের দিনেও তারা আমাদের অনুসরণ করবে। আমরা এই পৃথিবীর সর্বশেষ উম্মত কিন্তু হাশরেরে দিন আমরা সবার অগ্রে থাকব এবং আমাদের বিচার কার্যও অন্য সবার পূর্বে হবে।” (মুসলিম)

বিডি২৪লাইভ/এআইআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: