সম্পাদনা: খায়রুল ইসলাম রাজিব

ডেস্ক এডিটর

রেসলিং এ আসার আগে কি করতেন জন সিনা?

১৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৯:২৪:৪১

একসময়ে রেসলিংয়ের রিং কাঁপিয়েছেন স্টোন কোল্ড, অভিনয় করেছেন সিনেমাতেও। টিভির পর্দায় রক, বাতিস্তা, ট্রিপলএইচ, জন সেনা প্রমুখের রেসলিং দেখে মুগ্ধ-শিহরিত দুনিয়াজোড়া মানুষ।

হাজার হাজার টাকার টিকিট কেটে প্রিয় রেসলারদের দুঃসাহসী কুস্তি-মারামারির প্যাঁচ দেখতে যায় অগণন মানুষ। তবে এইসব কুস্তিগিরদের ব্যক্তিজীবন থাকে পর্দার অন্তরালে। বলা যায়, ফিল্মস্টারদের মতোই অনেকটাই লোকচক্ষুর বাইরে রাখা হয় তাদের অতীত।

তবে মিডিয়ার চোখ ফাঁকি দিয়ে থাকা বেশিদিন সম্ভব হয় না কারো পক্ষেই। ডাব্লিউডাব্লিউই (ওয়ার্ল্ড রেসলিং এন্টারটেইনমেন্ট যার আগের নাম ছিল ডাব্লিউডাব্লিউএফ অর্থাৎ ওয়ার্ল্ড রেসলিং ফেডারেশন)-এর রেসলারদের অনেকেরই মূল পেশা কিন্তু কুস্তিখেলা ছিল না। তাদের কেউ কেউ আছেন যারা আগে থেকে লক্ষ্যস্থির করে, প্রস্তুতি নিয়ে রেসলার হয়েছেন। অনেকেই ঘটনাচক্রে অন্য পেশা থেকে এসেছেন। এক নজরে দেখে নিন-

জন সিনা: ডাব্লিউডাব্লিউই-এর ১৫ বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন তিনি। হাল আমলের এই মল্লবীরকে দুনিয়াজোড়া মানুষ যতটা পছন্দ করে তার অতীত সম্পর্কে জানে তারচেয়ে অনেক কম।

ডাব্লিউডাব্লিউই-এর রিঙ মাতানোর আগে জন সিনা ছিলেন লিমোজিন চালক। তার ভক্তদের অনেকেরই এটা মানতে কষ্ট হবে যে ভাড়ায়চালিত লিমোজিনের ড্রাইভারি করে পেট চলত তার। বর্তমান মার্কিন বাজারে একজন লিমোজিন চালকের প্রতিঘণ্টার বেতন বা ভাতা হচ্ছে ১১ ডলার। পরে বিশ্বখ্যাত গোল্ড জিমের ব্যবস্থাপক হন তিনি।

ট্রিপল এইচ: তাকে ধরা হয় ডাব্লিউডাব্লিউই-এর একজন শীর্ষ সুপারস্টার হিসেবে। কুস্তির জগতে শোরগোল তোলার আগে তিনি ছিলেন মার্কিন ফাস্টফুড চেইন ওয়েন্ডিজের কর্মী।

বেশ কয়েকবার বিশ্ব চ্যাম্পিয়নের খেতাবজয়ী ট্রিপল এইচ ব্যক্তিজীবনে ডাব্লিউডাব্লিউই-এর চিফ ব্রান্ড অফিসার স্টেফানি ম্যাকমোহনের স্বামী। একইসূত্রে তিনি ডাব্লিউডাব্লিউই চেয়ারম্যান ভিন্স ম্যাকমোহনের জামাতা।

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: