প্রচ্ছদ / জাতীয় / বিস্তারিত

ফেসবুক বন্ধ চায় শিক্ষামন্ত্রী, যা বললেন মোস্তাফা জব্বার

২৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৯:১৭:০০

এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে ফেসবুক বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এর বিরোধিতা করে টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, প্রযুক্তি সচল রেখেই প্রযুক্তির অপব্যবহার মোকাবিলা করতে হয়। তিনি বলেন, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক বন্ধের পক্ষে আমি নই।’

মঙ্গলবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় একটি অনলাইন গণমাধ্যমকে একথা বলেন মোস্তাফা জব্বার। এর আগে দুপুরে সচিবালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আসন্ন এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা চলাকালীন ৩ ঘণ্টা সারাদেশে ফেসবুক-টুইটারসহ সব সোশ্যাল মিডিয়া বন্ধ থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে পরীক্ষা চলার সময় ফেসবুক বন্ধ রাখতে আইসিটি বিভাগ ও টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিকে অনুরোধ করবেন বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী।

শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘আমাকে এখনও কেউ অনুরোধ করেননি। অনুরোধ করলে অবস্থান জানাবো। এর আগেও ফেসবুক বন্ধ করা হয়েছিল। তখন প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় তা চালুর উদ্যোগ নেন। ফলে আবারও তা বন্ধ করার কোনও কারণ দেখি না। তবে প্রধানমন্ত্রী ও তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা যে সিদ্ধান্ত দেবেন, সে অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মোস্তাফা জব্বার বলেন, ‘প্রযুক্তি দিয়েই (সচল রেখে) প্রযুক্তির মোকাবিলা করতে হবে। প্রযুক্তি বন্ধ করে দেওয়া কোনও সমাধান হতে পারে না।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরীক্ষা শুরুর নির্ধারিত সময় সকাল ১০টা। এর আধা ঘণ্টা আগে অর্থাৎ ৯ টা ৩০ মিনিটে পরীক্ষার্থীকে নিজ আসনে বসতে হবে। এর পরে কেউ এলে তাকে পরীক্ষাকেন্দ্রে কাউকে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

তিনি বলেন, প্রশ্নফাঁস ঠেকাতে পরীক্ষার ৩০ মিনিট আগে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খুলে তা বণ্টন করতে হবে। এর এক মিনিট আগেও প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলা যাবে না। কেউ খুলে ফেললে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি আরো বলেন, প্রশ্নপত্রের প্যাকেট কেউ আগে খুলে ফেলছে কিনা তা তদারকি করতে নির্ধারিত একটি টিম থাকবে। এই টিম কেন্দ্রে কেন্দ্রে গিয়ে বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করবে। কোথাও প্রশ্নপত্র আগে খোলা হলে ওই কেন্দ্রের সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিডি২৪লাইভ/এমআই

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: