আসিফ আলম

বিনোদন প্রতিবেদক

মাঝ পথেই কি থেমে থাকবে শাকিবের ‘অপারেশন অগ্নিপথ’?

১০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৩:১৪:৩৬

ছবি : সংগৃহীত

নির্মাতা আশিকুর রহমান শাকিব খানকে নিয়ে শুরু করেছিলেন ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ নামের একটি চলচ্চিত্র। শুরু থেকেই বেশ আলোচনায় ছিল ছবিটি। মাঝে একটি টিজার প্রকাশ করা হয়েছিল। তবে নানা কারণে ছবিটির শুটিং এখন বন্ধ রয়েছে। প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ও পরিচালকের মধ্যকার দ্বন্দ্বের কারণেই মাঝ পথে থেমে আছে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’।

ছবিটির অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান সিনেফেক্ট এন্টারটেইনমেন্ট নির্মাতা আশিকুর রহমানের বিরুদ্ধে শুটিং ফাঁসানো ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ এনে মামলা করতে যাচ্ছেন। অস্ট্রেলিয়া ভিত্তিক প্রযোজনা সিনেফেক্টের প্রতিনিধি মাহিন আবেদীন জানান, পরিচালক আশিকুর রহমান ২০১৫ সালে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ চলচ্চিত্রটি তৈরির জন্য প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হন। বেশ ঘটা করে ঘোষণা দিলেও ছবির মূল শুটিংয়ের কাজ শুরু হয় ২০১৬ সালের ১৬ সেপ্টেম্বরে। গত দুই বছরে সিনেমার কাজ প্রায় ৬০ শতাংশের মতো শেষ হয়, বাকি কাজ ঝুলে আছে এখনও। আমরা আইনি নোটিশ পাঠিয়েছি। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সমিতির সভাপতির সঙ্গে কথা বলে মেইল করেছি। পাশাপাশি আমরা মামলার প্রস্তুতিও নিচ্ছি।

তবে নির্মাতা আশিকুর রহমান প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের অভিযোগ মানতে নারাজ। আশিকুর রহমান বলেন, উনারা অস্ট্রেলিয়াতে ‘সুপার হিরো’র শুটিংয়ের বদলে ‘অগ্নিপথ’র শুটিং করতে বলে যেটা প্র্যাক্টিকেলি সম্ভব না। উনাদেরকে এর আগে শাকিব খান দুইবার শিডিউল দিয়েছেন, কিন্তু শুটিংয়ের দুই- তিনদিন আগে তারা জানান টাকা নেই। এভাবে ফিল্মের শুটিং হয় না। আমি তাদেরকে গত ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭-তে অফিসিয়াল নোটিস পাঠাই যে, আমি নভেম্বর ১৬, ২০১৭ এর পর আর অগ্নিপথ মুভি র সাথে থাকব না। কিন্তু তারা কোনো রকমের কর্ণপাত করেননি। আমার কাছে যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ আছে তাদের গাফিলতির বিরুদ্ধে। তাদের অভিযোগের কোনো ভিত্তিই নেই।

এই মুহূর্তে তাদের সাথে যোগাযোগ আমার লিগাল কনসালটেন্ট করছে। আর অস্ট্রেলিয়াতে তাদের সাথে আইনি ব্যাপারে জাওয়ার প্রশ্নই আসে না, কারণ তাদের সাথে আমার কোনো চুক্তিই নেই। আমি বাংলাদেশ চলচিত্র পরিচালক সমিতিতে প্রমাণসহ অভিযোগ দিচ্ছি।

পরিচালক আশিকুর রহমান আরো বলেন, এখন অন্য মুভি’র শুটিং শুরু করায় তারা ঈর্ষান্বিত হয়ে আমাদের শুটিং এ ঝামেলা তৈরি করছে। এতে আমরা খুবই বিরক্ত। উন্মাদের আইনি নোটিশের কোনো ভিত্তি নাই। আমি এবং শাকিব খান দুই জনেরি চুক্তি বাংলাদেশের ভারটেক্স প্রডাকশন হাউসের সাথে। সিনেফেকট এর সাথে আমাদের কোনো রকমের কোনো চুক্তি বা লেনদেন নেই।

এছাড়াও পরিচালক বলেন, আমি সর্বদা চাই মুভিটি হউক, এর জন্য আমি অনেক মূল্যবান সময় হারিয়েছি আমার জীবন থেকে। আমি আর কিছু হারাতে চাই না। প্রযোজকরা যদি সত্যিকার অর্থে শুটিং এর আয়োজন করতে পারেন, তাহলে সময় থাকলে আমি মুভিটি করার চেষ্টা করবো। কারণ গত ৭ই সেপ্টেম্বর ২০১৭ তে আমি অফিসিয়াল ভাবে তাদের জানিয়ে দিয়ে নভেম্বর ১৬, ২০১৭ এর মধ্যে শুটিং শেষ না হলে আমি রিসাইন দিব। চুক্তি মোতাবেক পরিচালক হিসাবে আমার দায়িত্ব মুভিটির কাজ স্ক্রিপ্ট অনুযায়ী শেষ করা। আর্টিস্ট এর শিডিউল নেয়া প্রযোজকের কাজ। এর জন্য তো আমি সারা জীবন অপেক্ষা করতে পারব না। শাকিব ভাই তাদের দুইবার ২৫+২৫= ৫০ দিনের শিডিউল দিয়েছিলেন। কিন্তু তারা শুটিং এর ৩-৪ দিন আগে টাকা নেই বলে শুটিং ক্যানসেল করে দেন।

তিনি আরো বলেন, শাকিব খানের শিডিউল যেটা তারা মিস করেছে। এই রকম আর একবার তারা শিডিউল নিয়েছিল। সিনেফেক্ট এর সাথে চুক্তি করাকালীন ছবি। চুক্তি করার সময় ভারটেক্স ও সিনেফেক্ট এর প্রতিনিধি উপস্থিত ছিল। চুক্তি মোতাবেক পরিচালক হিসাবে আমার কাজ শুধুমাত্র স্ক্রিপ্ট অনুযায়ী চলচিত্রের শুটিং করা। আর্টিস্ট এর শিডিউল মেনেজ করা প্রযোজকদের কাজ।

বিডি২৪লাইভ/টিএএফ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: