প্রচ্ছদ / রাজনীতি / বিস্তারিত

সম্পাদনায়: ইয়াসিন আলী

ডেস্ক এডিটর

হঠাৎ শীর্ষ নেতাদের বৈঠক

বিএনপির নতুন কর্মসূচি আসছে, ঘোষণা রবিবার

২১ এপ্রিল, ২০১৮ ২৩:৫২:০০

ছবিঃ প্রতিকী।

দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নতুনভাবে কর্মসূচি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি। শনিবার (২১ এপ্রিল) রাতে দলের স্থায়ী কমিটির এক জরুরি বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। রবিবার (২২ এপ্রিল) সকালে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ এ কর্মসূচি ঘোষণা করবেন বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বৈঠকে অংশ নেয়া দলের স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বিডি২৪ লাইভকে বলেন, ‘দলীয় চেয়ারপারসনের মুক্তির দাবিতে নতুন কর্মসূচি দেওয়া হবে। কালকে (রবিবার) এটা কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে ঘোষণা হতে পারে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সন্ধ্যা থেকে রাত প্রায় ৯টা পর্যন্ত চলা এ বৈঠকে খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া, তার মুক্তির দাবিতে নতুন কর্মসূচি প্রণয়ন এবং গাজীপুর সিটি করপোরেশনে ২০ দলীয় জোটের একক প্রার্থী নির্ধারণ নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া কারাবন্দি খালেদা জিয়ার সঙ্গে নেতাকর্মীদের সাক্ষাতে বাধা এবং জামায়াতের আচরণ নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে সরকারের তরফ থেকে লুকোচুরি চলছে। কিন্তু এই লুকোচুরির নৈপথ্যে কী, সেটি তারা এখনও ঠিক করতে পারেননি।

এর আগে সকালে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎ না পেয়ে উদ্বিগ্ন বিএনপি বলেছে, তাদের নেত্রীর স্বাস্থ্যের অবনতি হলে সরকারকেই দায় নিতে হবে। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের অভিযোগ, কারা কর্তৃপক্ষ খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় যথাযথ ব্যবস্থা নিচ্ছে না। তার বেশ কিছু রক্ত পরীক্ষা এবং এমআরআই করা জরুরি বলেও দাবি করেন ফখরুল।

‘গণবিচ্ছিন্ন ও রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে যাওয়া সরকারের ২০১৪ এর মতো একতরফা নির্বাচনের প্রহসনের মধ্য দিয়ে আবারও ক্ষমতা দখলই হচ্ছে তাদের মূল উদ্দেশ্য। আইনের বিধানকে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে দেশনেত্রীকে জামিন না দেওয়ায় কারাগারে তার প্রাপ্য সুবিধা থেকে তাকে বঞ্চিত করা, সুচিকিৎসা থেকে তাকে বঞ্চিত করা-এটা অমানবিক’ বলেও জানান ফখরুল।

তবে এখনও হাল ছেড়ে দেইনি বিএনপি। তারা দেশনেত্রীর সুচিকিৎসার জন্য প্রয়োজনে আবারও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবে। তাতেও যদি কাজ না হয় তাহলে আদালতে যাবে বলেও দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

এদিকে গাজীপুর সিটি করপোরেশন ইস্যুতে ২০ দলীয় জোটের দুই ভোটবন্ধু-জোটসঙ্গী বিএনপি ও জামায়াত সমঝোতায় আসলেও দলটির কার্যক্রম সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ করবে বিএনপি। এছাড়া সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ‘বৃহত্তর ঐকের’ বিষয়ে খানিকটা নির্ভার রয়েছে বিএনপি। তবে এই ঐক্যকে সাফল্যের পর্যায়ে নিয়ে যেতেও বাড়তি সতর্কতা নেওয়ার কৌশল নিয়েছে দলটির শীর্ষ নেতৃত্ব।

বিডি২৪লাইভ/এইচএএম/ওয়াইএ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: