আব্দুর রউফ

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি

খাগড়াছড়িতে হরতাল চলছে

২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ০৯:০০:০০

ছবি: ফাইল ছবি।

অপহৃত ৩ ব্যবসায়ীর মুক্তির দাবিতে বৃহত্তর পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের ডাকে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল চলছে।

সোমবার (২৩ এপ্রিল) সকাল থেকে দূরপাল্লার যানবাহন, শহরের দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। শহরের কিছু জায়গায় হরতালের সমর্থনে পিকেটিং করতে দেখা গেছে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের কর্মীদের।

গত ১৬ এপ্রিল মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি এলাকায় কাঠ কিনতে গিয়ে নিখোঁজ হন মাটিরাঙা উপজেলার তিন ব্যবসায়ী। নিখোঁজের ৭ দিন অতিবাহিত হলেও এখনও তাদের কোন সন্ধান মেলেনি।

অপহৃত ওই ৩ ব্যবসায়ীর মুক্তির দাবিতে ২২ এপ্রিল রাতে হরতাল আহ্বানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আব্দুল মজিদ। ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েও অপহৃতদের উদ্ধারে প্রশাসন ব্যর্থ হওয়ায় এ হরতালের ডাক দেয় সংগঠনটি।

গত শুক্রবার খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন থেকে অপহৃতদের অক্ষত উদ্ধারের দাবি জানিয়ে অপহৃতদের পরিবার ও বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি লোকমান হোসেন এ হরতালের ঘোষণা দেয়। এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় হরতালের সমর্থনে বিক্ষোভ মিছিল করেছে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ।

খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম সালাহউদ্দিন জানান, অপহৃতদের উদ্ধারে আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছি। এলাকাটি দুর্গম হওয়ায় আমরা কিছু কৌশলে এগোচ্ছি। দ্রুতই অপহৃতদের উদ্ধার করা হবে।

জানা যায়, খাগড়াছড়ির মাইসছড়িতে কাঠ কিনতে গিয়ে ট্রাক চালক-ব্যবসায়ীসহ অপহৃত ৩ বাঙ্গালীকে উদ্ধার করতে কয়েক দফা আল্টিমেটাম দেয়ার পরও উদ্ধারে প্রশাসন ব্যর্থ হওয়ায় এ হরতালের ডাক দেয় সংগঠনটি।

এদিকে অপহরণের ৬দিন পার হলেও মানবাধিকার কমিশন, সুশীল সমাজ কেন পাহাড়ে ৩ বাঙ্গালী অপহরনের ঘটনায় নীরব ভূমিকা পালন করছে? কেন প্রশাসনের সফলতা নেই ? এসব প্রশ্ন তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন বাঙ্গালী সংগঠনের নেতারা।

উল্লেখ্য, গত ১৬ এপ্রিল মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি এলাকায় কাঠ কিনতে গিয়ে নিখোঁজ হন মাটিরাঙ্গা উপজেলার ৩ বাঙ্গালি। নিখোঁজের ৬ দিন অতিবাহিত হলেও এখনও পর্যন্ত তাদের কোন সন্ধান মেলেনি।

বিডি২৪লাইভ/এএইচআর

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: