নাজমুস সাকিব সোহান

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট

হাসপাতালের কর্মকর্তা কর্মচারীদের কাছে জিম্মি-অসহায় রোগীরা

১০ মে, ২০১৮ ২২:০৭:০০

ছবিঃ সংগৃহীত

রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট হাসপাতালের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কাছে জিম্মি হয়ে থাকতে হয় অসহায় রোগীদের। টাকা ছাড়া এই হাসপাতালে কোনভাবেই রোগী থাকতে পারেনা। হাসপাতালের পরিবেশ যেমন অপরিস্কার, ঠিক তেমনটাই কর্মচারীদের আচার-আচারণও।

মঙ্গলবার (৮ মে) সরজমিনে এ হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, হাসপাতালের ভিতরে ময়লা আবর্জনা এবং দুর্গন্ধে ভরে আছে। কিছু কিছু জায়গায় ময়লার স্তুপও দেখা গেছে।

আবার রোগীদের থাকার ওয়ার্ডগুলো থেকে বের হয় তেলাপোকা, ইদুঁর। একটু বৃষ্টি হলেই ছাদ ও দেয়াল গড়িয়ে পানি চলে আসে মেজেতে। ওয়ার্ডগুলোতে শীতাতাপ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা থাকলেও এগুলো চলতে দেখা যায়নি। বৃষ্টির জমে থাকা পানিতে পোকা আর মশার মেলা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাংলাদেশ গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর এক সদস্য জানান, টাকা ছাড়া এই হাসপাতালে থাকা সম্ভব না। আর এখানকার আয়া এবং নিরাপত্তা কর্মীদের আচরণও ভালো না। তারা রোগীদের রোগী ভাবে না।

‘গতকাল অন্য একজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে অসুস্থ এক মহিলাকে বিছানা থেকে নামিয়ে বারান্দায় রাখা হয়। সারারাত সেখানেই থাকে ওই মহিলা। পরেরদিন সকালে বিরক্ত হয়ে তিনি চলে যান।’

দুই দিন ধরে হাসপাতালের বারান্দায় রোগী নিয়ে থাকা ফাতেমা খাতুন বিডি২৪লাইভকে বলেন, ‘এখানে ব্যাডে থাকতে লাগে ৫০০ টাকা। আর নিচে থাকার জন্য লাগে ৫০ থেকে ১০০ টাকা।’

এই হাসপাতালটির প্রতিটি ওয়ার্ড দুইজন করে দেখাশোনা করেন। তাদের কাজের সময় ১২ ঘণ্টা। এরাই সাধারণত নির্ধারণ করে কোন রোগী কখন ব্যাডে যাবে। হাসপাতালের ভেতরে নিরাপত্তা কর্মীদের রুমে গিয়ে দেখা যায় কয়েকজন কর্মচারি ধূমপান করছেন।

তবে সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. জাফর উল্লাহ সোহেল বিডি২৪লাইভকে বলেন, ‘বর্তমানে হাসপাতাল ভবনের কন্সট্রাকসনের কাজ চলার কারণে অপরিস্কার দেখা যাচ্ছে। এটা অল্প সময়ের মধ্যেই ঠিক হয়ে যাবে। আর রোগীদের সঙ্গে ওয়ার্ড বয়দের খারাপ আচরণের জন্য এ পর্যন্ত ২০-২৫ জনকে ছাঁটাই করা হয়েছে।’

‘তবে হাসপাতাল পরিস্কার করলেই হবে না। রোগীদেরও সচেতন হতে হবে।’

বিডি২৪লাইভ/ওয়াইএ

বিডি টুয়েন্টিফোর লাইভ ডট কম’র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

পাঠকের মতামত: